বিশ্বের বিখ্যাত ক্রিপ্টোকারেন্সি জালিয়াতি 2022 | Cryptocurrency fraud in India

অতীতে ঘটে যাওয়া biggest cryptocurrency scams in india এ বিষয়ে আলোচনা করবো। আপনারা ক্রিপ্টোকারেন্সিতে কি কি বিষয়ে সতর্ক থাকবেন ?

Bigest Cryptocurrency Fraud in India

প্রতিদিন হাজার হাজার cryptocurrency launched হচ্ছে আর প্রতিদিন নিত্যনতুন ভাবে crypto fraud হচ্ছ। আপনাকে এই জালিয়াতি থেকে বাঁচতে চোখ কান খুলে এই মার্কেটে invest করতে হবে। নিচে কয়েকটি ক্রিপ্টো coin এর list দিয়েছি যেগুলো অতীতে অনেক বারো ধরণের cryptocurrency fraud করেছিল।

ONE COIN Cryptocurrency


কিভাবে এক মহিলা cryptomarket থেকে ১৫ Billon ডলার টাকা Fraud করে পালিয়ে গেলো। এখনো পর্যন্ত মহিলা কে খুঁজে পাওয়া যায়নি।
Dr. Ruja Ignatova বুলগেরিয়ান মহিলা ২০১৪ সালে One Coin নামে এক ক্রিপ্টোকার্রেন্সি তৈরি করেন। এই কয়েন টেকনোলজি অন্যানর তুলনায় আলাদা এটি একটি পিরামিড মতো যত লোক কে যুক্ত করবেন তত টাকা পাবেন। বলা হয় এটি Blockchain টেকনোলজি উপর কাজ করে |


কিন্তু, পুরো একটি fake coin এর পুরো ডাটা গুলো নিজেদের সার্ভার এ উপর কাজ করে। ইনভেস্টেরদের বলা হয় একবার ইনভেস্ট করুণ প্রতিনিয়ত টাকা আসতে থাকবে (এই রকম শব্দ থেকে তোমাদের দূরে থাকতে )|


এই Scam টি বুঝে শুনে করা হয় , বড়ো বড়ো News channel ও খবর কাগজে paid promotion করা হয়। সেলেব্রিটি স্পিকারদের দিয়ে বড়ো বড়ো show আয়োজন করা হয়। এতে মানুষের বিশ্বাস বেড়ে যায় এর ফলে অনেক পরিমানে মানুষ ইনভেস্ট করতে শুরু করে ক্রিপ্টো কার্রেন্সি টির price বারতে থেকে অনেক পরিমানে buyer আসতে থেকে।
এই কয়েন টির তুলনা বিটকয়েন এর সাথে করা হয় , সোশ্যাল মিডিয়ায় বলা হয় one coin one life , এই one coin এর তুলনা বিটকয়েন এর সাথে করা হয়।


চীন ও ভারত সব থেকে বেশি এই কয়েন এ ইনভেস্ট করে ছিল এই দুটি দেশ কে বেশি টার্গেট করা হয় , চীন ৬ মাসের মধ্যে ৩০০০ কোটি টাকার বেশি ইনভেস্ট করে ও ভারতে অনেকে কোটিপতি
চীন ও ভারত সব থেকে বেশি এই কয়েন এ ইনভেস্ট করে ছিল এই দুটি দেশ কে বেশি টার্গেট করা হয় , চীন ৬ মাসের মধ্যে ৩০০০ কোটি টাকার বেশি ইনভেস্ট করে ও ভারতে অনেকে কোটিপতি,
হওয়ার স্বপ্নে অনেক সাধারণ মানুষের টাকা হারিয়েছে |


এই মহিলার আসল রহ্যাসটি জানা যায় ২০১৭ সালে অক্টোবর মাসে পর্তুগালে একটি অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়। ওয়ান কয়েন ক্রিপ্টো কার্রেন্সি সম্বন্দে অনেকের প্রশ্ন ছিল যে এই কয়েন টি ব্লকচেন টেকনোলজি উপর কাজ করে কিনা অনুষ্ঠানের সময় পেরিয়ায় Ruja Ignatova কোনো খবর পাওয়া যায় না। অনেক ভাবে যে তাকে অপহরণ করা হয়ছে।
ইনভেস্টরা চিন্তায় পরে যায়।


২০১৭ সালের অক্টোবর মাসের টিক তার ২ সপ্তহ পর Ruja Ignatova এথেন্স এর একটি প্লানের টিকেট কেটেছিলেন। শেষে তাকে গ্রীসে দেখা গিয়েছিলো।
তারপর তিনি কোথায় গেলেন এখনো পর্যন্ত জানাযায়নি।


Dr Ruja Ignatova ভাই কে FBI তাকে ২০১৯ সালে গ্রেফতার কর।
এই জালিয়াতির ফলে অনেক মানুষের লক্ষ লক্ষ টাকা ডুবে যায় , ক্রিপ্টো কারেন্সী থেকে মানুষ বিশ্বাস হারিয়েফেলে।

Quadrigacx

কানাডিয়ান Cryptocurrency Exchange যার নাম Quadrigacx এই কোম্পানির CEO Gerald Cotten এর মৃত্য হয় ভারতের জয়পুর শহরে ৭ ডিসেম্বর।
মৃত্যর খবর প্রকাশ্যে আসে ২ মাস পরে এই খবর টি শুনে ইনভেস্টরা টাকা তোলার চেষ্টা করে কিন্তু ওয়েবসাইট টি সেল ও অন্য ওয়ালেট ট্রান্সফার কোনো ট্রানজেক্শন করা যাচ্ছে না।


ওয়েবসাইট টি খুললে একটি লিখিতো পত্র পাঠানো হতো তাতে লেখা থাকতো ইনভেস্টরদের টাকা তারাতারি ফিরিয়ে দেওয়া হবে। প্রায় ১৫০০ কোটি টাকা আটকে রয়েছে।
জেরাল্ড কটন এর স্ত্রী Jennifer Robertson দেউলিয়া ঘোষণা করেন দেন তাকে যেন ইনভেস্টরদের টাকা ফিরিয়ে দিতে না হয়।


যারা এই এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে ক্রিপ্টোকারেন্সী বিনিয়োগ করেছিল তারা আদালতে ফ্রড কেসের মামলা দায় করা হয়। মামলায় ডেট সার্টিফিকেট আরো প্রমানের তাগিতে Gerald Cotten কে মৃত বলে ঘোষিত করা হয়। অনেকেই ডেট সার্টিফিকেট নকল বলেও মনে করেন।


তারপরে, আর একটি খবর সামনে আছে যে তার মৃত্যুর দুই সপ্তাহ আগে তার সম্পত্তি স্ত্রীর নামে করে গিয়েছিলেন তাহলে , তিনি কি জানতেন যে তার দু সপ্তাহ পরে মৃত্যু হবে অনেকের সন্দেহ জাগে | অনেকে মনে করেন এখনো জীবিত আছেন কোন আইল্যান্ডে বা অন্য কোনো দেশে হয়তো লুকিয়ে আছেন।

এই এক্সচেঞ্জ এর ক্রিপ্টোকারেন্সি গুলিকে কোল্ড ওয়ালেট রাখা হয়েছিল, এটি এমন একটি ওয়ালেট যা অফলাইনের মাধ্যমে ক্রিপ্টো কারেন্সী গুলোকে ব্যবহার করা হয়। পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে ওয়ালেট ওপেন করা অসম্ভব।
যদি হট ওয়ালেটে স্টোর করে রাখা থাকলে যেকোনো ভাবে ওয়ালেট টি ওপেন করা যেতো।
অতো বড়ো একটি কোম্পানি পাসওয়ার্ড শুধু এক জনই জানেন অনেক মনে করে তার স্ত্রী সব টাকা হাতিয়ানোর চেষ্টা করছেন তিনি হয় তো পাসওয়ার্ড টি জানেন।


অনেকেই মৃতদেহ দেখার জন্য প্রশ্ন তোলেন, তিন মাস পর কফিন থেকে মৃতদেহটিকে DNA টেস্ট করার জন্য পাঠানো হয় DNA রিপোর্টে প্রমাণিত হয় যে এই দেহটি Gerald Cotten এরই। বেশির ভাগ মানুষ বিটকয়েন এ ইনভেস্ট করেছিল , ক্রিপ্টোমার্কেটে তখন বিটকয়েন ক্রিপ্টো কারেন্সী জনপ্রিয় ছিল। কিছু কিছু মানুষ লোন নিয়ে ইনভেস্ট করে ছিলেন। এখনো পর্যন্ত ইনভেস্টদের টাকা ফেরত দেওয়া হয়নি।


এই কাহিনি নিয়ে একটি ডকুমেন্টারি সিনেমা তৈরি করা হয়ছে। মুভিটি হলো Trust No One: The Hunt for the Crypto King কাহানিটি বিস্তারিত জানতে আপনি এই মুভি টি দেখতে পারেন।

Squid Game

এই ক্রিপ্টোকারেন্সি টির নাম Netflix এর পপুলার শো থেকে নেওয়া হয়েছে। ক্রিপ্টোটি লঞ্চ করার ২ দিন পর থেকেই রকেট এর মতো Price বাড়তে থাকে।

অনেকে মনে করেন এই ক্রিপ্টোকারেন্সির প্রাইস বাড়তে পারে এরফলে অনেকে পরিমানে Buyer আসতে থাকে। এক সপ্তাহের মধ্যে প্রায় ৩ টাকা থেকে ৬,০০০ টাকায় ট্রেড করতে থাকে। ঠিক তার ২-৩ ঘন্টার পরে হটাৎ ০.৫২ টাকায় ট্রেড করে ইনভেস্টরা ঘাবড়ে যায় |

কিছু লোকই সেল করতে পেরে ছিল , বেশির ভাগ ইনভেস্টরা হোল্ড করেছিলেন তারদের পুরো টাকা টায় ডুবে যায়। তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ও কাজ করা বন্ধ করে দেয় |

অনেক একে scam ও Fraud বলা হচ্ছে। ইনভেস্টরদের লক্ষ লক্ষ টাকা ডুবে যায়। কয়েনটি কে বানিয়াছেন ও Scam এর ব্যাপারে আসল খবর এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি।

আজকে আমরা শিখলাম

পৃথীবির সব থেকে বড়ো ক্রিপ্টো Scams, কি ভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সীতে জালিয়াতি করা হচ্ছে
অনেক মানুষ ক্রিপ্টোতে টাকা হারিয়েছেন।
crypto market অনেক বিপদজনক নিজের দায়িত্বে বিনিয়োক করুন |

আরো পড়ুন

Leave a Comment