আমাকে আমার জীবন ফিরিয়ে দিলেন – মানহানি মামলায় জেতার পর বললেন পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ানের “Jack Sparrow”!

Johnny Depp Case In Bengali: কালকে আমেরিকার ভার্জিনিয়ার একটি আদালত জনি ডেপ অ্যাম্বার হার্ড কেসের (johnny Depp Ember Heard Case) রায় দিয়েছে।  জনি ডেপ কেস জিতে গেছেন আর তার প্রাক্তন স্ত্রী অ্যাম্বার হার্ড কে 15 মিলিয়ন ডলার জরিমানা দেয়ার জন্য বলা হয়েছে।  

আদালত ঠিক কি রায় দিয়েছে জনি ডেপ ও অ্যাম্বার হার্ড কেসের (johnny depp vs amber heard judgement) ব্যাপারে?

আদালত রায়  দিয়েছে যে,অ্যাম্বার হার্ড জনি ডেপকে বদনাম করার চেষ্টা করেছিল এর জন্য অ্যাম্বার হার্ডকেই 15 মিলিয়ন ডলার দিতে হবে।

জনি ডেপ (Johnny Depp) কে 15 মিলিয়ন ডলার দেয়া হচ্ছে কেন?

জনি ডেপ অ্যাম্বার হার্ডর ওপর 50 মিলিয়ন ডলারের মানহানির কেস ফাইল করেছিল। অ্যাম্বার হার্ড হেরে যাওয়ায় আদালত তাকে 50 মিলিয়ন এর জায়গায় 15 মিলিয়ন মার্কিন ডলার জরিমানা দিতে বলেছে। 

জনি ডেপ যখন 50 মিলিয়ন মার্কিন ডলারের মানহানির কেস করেছিল অ্যাম্বার বিরুদ্ধে, অ্যাম্বার হার্ড Jonny Depp এর ওপর 100 মিলিয়ন ডলারের কেস ঢুকেছিল। অ্যাম্বার হার্ড আদালতের কাছে অভিযোগ করেছিল যে জনি ডেপ তাকে মদ্যপ অবস্থায় মারতো, গালিগালাজ করতো। কিন্তু জনি ডেপ  অভিযোগগুলি সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করেন, তিনি আদালতকে জানান যে তার স্ত্রী তাকে মারার চেষ্টা করত।

2011 সালে একটি ফিল্ম (The Rum Diary) তে কাজ করার সময় তাদের দু’জনার মধ্যে পরিচয় হয়। ফেব্রুয়ারি 2013 তে তারা বিয়ে করে। কিন্তু এই বিয়ে বেশিদিন টেকেনি মাত্র 15 মাসের মাথায় ভেঙ্গে যায়। আর 2016 তে অ্যাম্বার হার্ড ডিভোর্স ফাইল করে। ডিভোর্স হয়ে যাওয়ার পর তারা দু’জনে একে অপরের প্রতি যে অভিযোগগুলি আনছিল সেটা আদালত পর্যন্ত গড়ায়। জনি ডেপ ও অ্যাম্বার হার্ড একে অপরের প্রতি যে অভিযোগগুলো করেছিল সেগুলি হল-

Amber Heard-এর অভিযোগ Johnny Depp তাকে তিন দিন ধরে ঘরের মধ্যে বন্দি করে রেখেছিল। আর জনি ডেপের অভিযোগ অ্যাম্বার হার্ড তাকে দুটি ভদকা বোতলে করে ছুঁড়ে মারে আর তার হাতের একটি আঙ্গুল কেটে যায়।

2016 তে অ্যাম্বার হার্ড আবার অভিযোগ করেন যে লস এঞ্জেলেস অ্যাপার্টমেন্টে জনি ডেপ তাকে মারে। কিন্তু পুলিশ জানায় যে “আমরা এর কোন তথ্য প্রমাণ পায়নি”। আর ওই অভিযোগটি অ্যাম্বার হার্ড 2016 তে ফিরিয়ে নেন। এরপর তারা দুজনে 7 মিলিয়ন ডলারের ডিভোর্স সেটেলমেন্ট করে ফেলে। এই টাকাটা দিতে হয় জনি ডেপকে। তারা দুজন আর কোনোদিন জনসমক্ষে কিছু বলবেন না বলে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়েছিলেন। এর জন্য 2016 তে মনে করা হয়েছিল যে কেসটা মিটমাট হয়ে গেছে। উপরন্তু অ্যাম্বার হার্ড এটা বলেছিলেন যে তাকে যে ৭ মিলিয়ন ডলার দেয়া হবে সেটা তিনি চ্যারিটিতে দান করবেন।

2018 তে এই মামলাটি আবার জেগে ওঠার কারণ হচ্ছে অ্যাম্বার হার্ডর “ওয়াশিংটন পোস্টে” করা একটি প্রতিবেদন যেখানে তিনি তার প্রতি হওয়া ডোমেস্টিক ভায়োলেন্স, শারীরিক নির্যাতন প্রভৃতির অভিযোগ তুলে ধরেন। যদিওবা এই প্রতিবেদনে সরাসরি জনি ডেপের  নাম না করা হলেও এই প্রতিবেদনটি কারণে জনি ডেপের সমস্ত কাজ হারিয়ে ফেলেন, জনপ্রিয় মুভি “দ্য পাইরেটস অফ ক্যারিবিয়ান” থেকেও তাকে সরিয়ে দেয়া হয়। এর ফলে তিনি অনেক আর্থিক  সমস্যায় পড়ে যান।

এইজন্যই জনি ডেপ আবার অ্যাম্বার হার্টের প্রতি মানহানির কেস দায়ের করেন। তার যে মানহানি হয়েছে, আর যে পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হয়েছে, তার দাবিতে।

ওয়াশিংটন পোস্ট ইউএসএ’র ভার্জিনিয়া থেকে প্রকাশিত হয়, তাই জনি ডেপ ভার্জিনিয়াতেই অ্যাম্বার হার্টের বিরুদ্ধে কেস করেন। এই Case টার বিচার গত 15 মাস ধরে চলছিল। ওয়াশিংটনে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনটির কারণে জনি ডেপের সম্মান ক্ষুন্ন হয়েছে, তাই  50 মিলিয়ন ডলারের মানহানির কেস করেন।

 কিন্তু অ্যাম্বার হার্ডর উকিল আদালতকে জানান অ্যাম্বার যা কিছু বলেছেন সেটা আমেরিকার সংবিধানের ফ্রী স্পিচ এর মধ্যে পড়ে। এর জন্য অ্যাম্বার কোনরকম জরিমানা করা যাবে না। কিন্তু অন্যদিকে জনি ডেপের অভিযোগ এই প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হওয়ার পর তিনি সবকিছু হারিয়ে ফেলেন, কেউ আর তার সাথে কাজে করতে চাইছিল না। তার সম্পূর্ণ ক্যারিয়ার শেষ করে দিয়েছে অ্যাম্বার হার্টে।

কালকে এই কেসটি জনি ডেপ জিতে গেছেন এর জন্য অ্যাম্বার হার্ড তাকে 15 মিলিয়ন মার্কিন ডলার জরিমানা দেবেন।

Leave a Comment