দ্য গ্যাং অফ পাঞ্জাব – পাঞ্জাবের কয়েকটি কুখ্যাত গ্যাংস্টার

Sidhu Moose wala Update: পাঞ্জাবে গ্যাং কালচার এর প্রচলন দিন দিন বেড়েই চলেছে। আটটি থেকেও বেশি জ্ঞান মাঝা আর দাওবা অঞ্চলে সংক্রিয় আছে। পাঞ্জাবে ড্রাগসের সমস্যা,বন্দুকের সমস্যা, গ্যাং লড়াই যত দিন যাচ্ছে বিপদজনক হয়ে উঠছে। পাঞ্জাবের অনেক সেলিব্রিটি জানিয়েছেন তাদের কে ফোনে ধমকি দেওয়া হয়, “যদি টাকা না দেয় তাহলে মেরে ফেলা হবে”। পাঞ্জাবে গেলে আপনি শুধু গ্যাংস্টার দেখতে পাবেন পাঞ্জাব পুলিশকে দেখতে পাবেন না।

“গ্যাং অফ ওয়াসিপুরের”থেকেও বেশী বিপদজনক এই গ্যাং অফ পাঞ্জাব। জনপ্রিয় পাঞ্জাবি গায়ক “সিধু মুসে ওয়ালা”তিনি তো চলে গেলেন কিন্তু পাঞ্জাবের উপর রেখে গেলেন অনেকগুলি প্রশ্ন।

পাঞ্জাবে গ্যাং কালচার এর প্রচলন অনেকদিন আগে থেকেই আছে। এখন তারা এতটাই শক্তিশালী হয়ে গেছে যে যেটা ইচ্ছা সেটাই করে। বেশিরভাগ গ্যাং লিডার কে এনকাউন্টারে মেরে ফেলা হয়েছে, আর এখন যারা আছে তারা জেলে বন্দী। জেল থেকেই তারা তাদের গ্রুপ কে পরিচালনা করছে।

এন্টি গ্যাংস্টার টাক্স ফোর্স (Anti Gangster Task Force) স্পেশালভাবে শুধুমাত্র পাঞ্জাবের জন্যই তৈরি করা হয়েছে। এই এজিটিএফ (AGTF) এর রিপোর্ট অনুযায়ী আর্টি থেকেও বেশি গ্যাংস্টার গ্রুপ পাঞ্জাবে সংক্রিয় আছে। আর 40 টি মোস্ট ওয়ান্টেড গ্যাংস্টার দের এ জি টি এফ খুঁজে বেড়াচ্ছে।

সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করলো কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই পদ্ধতিতে পরীক্ষা হবে

পাঞ্জাবের এই গ্যাংস্টার গুলি পুলিশের হাত থেকে বাঁচার জন্য বিদেশে পালিয়ে যায় আর সেখান থেকে তাদের গ্রুপ কে পরিচালনা করে।

কিছুদিন আগে যে পাঞ্জাবি গায়ক”সিধু মুসে ওয়ালা” কে গুলি করে হত্যা করা হলো, যে এই কাজটি করেছে “গোল্ডি বারাট”, সেই কাজটি কানাডা থেকে পরিচালনা করেছে।

পাঞ্জাবের জনপ্রিয় কবাডি ও কুস্তি প্রতিযোগিতায় এই গ্যাংস্টারদের ভালো রকম অংশীদারিত্ব থাকে। কবাডি ও কুস্তি প্রতিযোগিতায় যারা এই গ্যাংস্টারদের কথা শোনে না তাদেরকে মেরে ফেলা হয়।

পাঞ্জাবের কয়েকটি কুখ্যাত গ্যাংস্টার দের তালিকা

১) লরেন্স বিষ্ণুই

এই গানটাই সিধু মুসে ওয়ালার হত্যার দায়িত্ব নিয়েছে। লরেন্স বিষ্ণোই এখন জেলে বন্দী আছে আর তার জ্ঞানকে জেল থেকে পরিচালনা করে। এই গানটি রাজস্থান হরিয়ানা পাঞ্জাব প্রদেশ গুলিতে সংক্রিয় আছে। এই গ্যাং-এ ৬০০ টির বেশি সর্প শুটার আছে। গোল্ডি ব্রার (Goldi Brar) সিধু মুসে ওয়ালা (sidhu mesewala) হত্যাকারী এদের মধ্যে একজন।

২) বামবিহা গ্যাং

এই বাম্বিহা গ্যাং শিরোমনি অকালি দলের একটি লিডার কে হত্যা করেছিল। এই জ্ঞানের লিডার হচ্ছেন সুপ্রীত বুড্ডা। এই জ্ঞানের বেশিরভাগ লিডারদের এনকাউন্টারে মেরে ফেলা হয়েছে।

৩)সুপ্রীত সিং ওরফে হাড়ি চাড্ডা গ্যাং

এটি একটি পাঞ্জাবের কুখ্যাত গ্যাং। পাঞ্জাবের মাজা জেলায় সবথেকে বেশি অ্যাক্টিভ আছে এই গ্যাংটা। আর এই জ্ঞানের লিডার হলেন সুপ্রীত সিং হ্যাঁরি। তিনি এখন পর্তুগালে আছেন আর সেখান থেকেই তার নেটওয়ার্ক পরিচালনা করছেন। কাউকে মারার জন্য একটি ইশারায় যথেষ্ট এই হ্যারি চাড্ডা গ্যাং এর কাছে। চল্লিশটির ও বেশি হত্যার মামলা আছে এই গ্যাংটার বিরুদ্ধে।

৪) জগ্গু ভগবান পুড়িয়ে গ্যাং

এই গ্যাংটাও পাঞ্জাবের মাজা এলাকায় সংক্রিয়। এই গ্যাং টা শুরু হয়েছিল ছোটখাটো চুরি-চামারির মধ্য দিয়ে, পরে আস্তে আস্তে এরা অপরাধ জগতে নাম করে ফেলে। এদের বিরুদ্ধে কোর্টে 50 টি মামলা আছে। পাঞ্জাবের অনেক নেতার সাথে ভালো রকম সম্পর্ক আছে এই গ্যাংএর।

৫) সূক্ষা কেহেলন গ্যাং

এই গ্যাংস্টারের নাম আপনারা একবার না একবার কোথাও নিশ্চয়ই শুনে থাকবেন। এই গানটা পাঞ্জাবের দাওয়াতে অনেক বেশি সক্রিয়। 2000 থেকে 2015 সাল পর্যন্ত পাঞ্জাবে সবথেকে কুখ্যাত গ্যাং গুলির মধ্যে একটি। 2015 সালে গ্যাং ওয়ারে গ্যাং লিডার সুখা কাহলন মারা যান।

পাঞ্জাব সরকার কি করছে?

আম আদমি পার্টি সরকার অর্গানাইজ ক্রাইম কন্ট্রোল ইউনিট (OCCU) এর নাম বদলে এন্টি গ্যাংস্টার টাক্সফোর্স (AGTF) তৈরি করেছে, পাঞ্জাব থেকে সম্পূর্ণরূপে গ্যাং কালচার কে শেষ করার জন্য।

Leave a Comment