ক্রিপ্টো মাইনার কিভাবে কাজকরে? কিভাবে ক্রিপ্টো মাইনিং করতে হয় আর আপনি কিভাবে করবেন?

ব্লকচেইনে ক্রিপ্টো পাওয়ার জন্য কম্প্লেক্স ম্যাথামেটিক্স ইকুয়েশন সলভ করতে হয়। এটি ভার্চুয়াল কারেন্সি ট্রানজাকশন কে ভেরিফাই করে। তারপর ডিসেন্ত্রালাইজড ব্লকচেইন লেজারে আপডেট হয়ে যায়। এই প্রসেসটা যারা করে বাজে কম্পিউটারের মাধ্যমে করা হয় তাকে কিছু পরিমাণ ক্রিপ্টোকারেন্সি উপহার দেয়া হয়।
লোকে ক্রিপ্টোকারেন্সি সাধারণ ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ থেকে কিনে থাকে। কিন্তু ক্রিপ্টোকারেন্সি আপনি মাইনিং করেও অর্থাৎ কম্পিউটারের মাধ্যমে জটিল অংকের ক্যালকুলেশন সমাধান করে ও পেতে পারেন। আজ আপনাকে জানাব কিভাবে এই পদ্ধতিটি কাজ করে আর আপনি কিভাবে সেটা ঘরে বসে করতে পারেন। বিটকয়েন, ইথেরিয়াম, ডগি কয়েন, ক্যাট কয়েন, শিবা ইনু এই কয়েনগুলি ব্লক চেন টেকনোলজি উপর কাজ করে। এটি পাবলিক লেজারে কমপ্লেক্স এন্ড ওয়েন্ড এনক্রিপশনের মাধ্যমে সুরক্ষিত থাকে। লেজারে নতুন ক্রিপ্টো পাওয়ার জন্য জটিল ম্যাথামেটিক্স ইকোয়েশন সমাধান করতে হবে। এটি ভার্চুয়াল কারেন্সি ট্রানজাকশন কে ভেরিফাই করে। তারপর এটাকে ডিসেন্ত্রালাইজ ব্লকচেইন লেজারে আপলোড করা হয়।
এই কাজটি করার জন্য মাইনাস দেয়ার কিছু পরিমাণ অর্থ ক্রিপ্টোকারেন্সি রূপে দেওয়া হয়। এই প্রক্রিয়াকেই মাইনিং বলা হয়। minar-aari মার্কেটের একটি অপরিহার্য অঙ্গ।

মাইনিং কিভাবে কাজ করে?

মাইনিং এর সময় কম্পিউটার জটিল ম্যাথামেটিক্স ইকুয়েশন সমাধান করে। প্রতিটি কোড ক্র্যাক করতে পারে এমন কোডার ট্রানজাকশন কে অথরাইজ করে। এটা করার জন্য ময়নার কিছু ক্রিপট পায়। যখন ময়নার ম্যাথামেটিক্স প্রবলেম কে সম্পূর্ণরূপে সমাধান করে ট্রানজাকশন ভেরিফাই করে ডেটাকে পাবলিক লেজারে পাঠিয়ে দেয়, সেটিকেই ব্লকচেইন বলা হয়।

প্রুফ অফ ওয়ার্ক কি?

এটি ক্রিপ্টোকারেন্সি কি সুরক্ষিত রাখার অ্যালগরিদম। এই প্রসেস ব্লকচেইনে ট্রানজাকশন ডাটাই নতুন ব্লগ জোড়ার একটি আবশ্যিক অংশ। নতুন ব্লক ব্লকচেইন সিস্টেমে তখনই যুক্ত করা হয় যখন কোন ময়নার নতুন মিনিং অফ ওয়ার্ক তৈরি করে।

এটি ক্রিপ্টোকারেন্সি কি সুরক্ষিত রাখার অ্যালগরিদম। এই প্রসেস ব্লকচেইনে ট্রানজাকশন ডাটাই নতুন ব্লগ জোড়ার একটি আবশ্যিক অংশ। নতুন ব্লক ব্লকচেইন সিস্টেমে তখনই যুক্ত করা হয় যখন কোন ময়নার নতুন প্রুফ অফ ওয়ার্ক তৈরি করে। Proof Of Work-এর লক্ষ্য ইউজারকে সেই সমস্ত নতুন কয়েন আয় করা থেকে বিরত করে যেগুলি সে কেনেনি।

ময়নার গুলি এত দাম কেন?

শুরুর দিকে যখন বিটকয়েন প্রথম প্রথম বাজারে এসেছিল, তখন ক্রিপ্টো মাইনিং এর অনেক লাভ হয়েছিল। তখন ইকুয়েশন সলভ করার জন্য ময়নারকে 50BTC (তখনকার দাম $6,000) দেওয়া হত। কারণ তখন একটি বিটকয়েন মাইন করার জন্য উপযুক্ত টেকনোলজির অভাব ছিল। যত দিন যাচ্ছে বিটকয়েন অন্যান্য ক্রিপ্টো মাইনিং করার জন্য যে রিওয়ার্ড দেওয়া হয় তা কমে আসছে। বিটকয়েনের দাম এখন অনেক বেড়ে গেছে।
কিন্তু বিটকয়েন মাইনিং এর খরচ বহুগুণ বেড়ে গেছে। এখন একটি বিটকয়েন মাইনিং করার জন্য অনেক শক্তিশালী কম্পিউটার প্রয়োজন।

আপনি কিভাবে বিটকয়েন মাইনিং করবেন?

সবার আগে আপনাকে একটি শক্তিশালী কম্পিউটার কিনতে হবে। তারপর উপার্জিত ক্রিপ্ত গুলিকে রাখার জন্য আপনাকে একটি ক্রিপ্টো ওয়ালেট বানাতে হবে। আর আপনি যদি অধিক পয়সা ইনকাম করতে চান তাহলে আপনাকে মর্নিং পুলের সাথে যুক্ত হতে হবে। মাইনিং ভুল হচ্ছে একটি গ্রুপ, ময়নাদের সমস্ত কম্পিউটার পাওয়ার কে কাজে লাগিয়ে ক্রিপ্টোকারেন্সি করা হয়। আর যা ইনকাম হয় তা সবার মধ্যে ভাগ করে দেয়া হয়।
বিটকয়েন মাইনিং করা একটি খরচসাপেক্ষ কাজ তাই প্রথমের দিকে আপনি বিটকয়েন মাইনিং না করে অন্যান্য যেসকল নতুন নতুন ক্রিপ্টোকারেন্সি বাজারে আছে যেগুলি মাইন করতে শক্তিশালী কম্পিউটার এর প্রয়োজন হয় না, আপনার কাছে সাধারন হ্যাচ রেটের প্রসেসর যুক্ত কম্পিউটার থাকলেই ঐসকল ক্রিপ্টোকারেন্সি কুলী কি মাইন করতে পারবেন।

উপসংহার

ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইন করার জন্য আগে ভালোভাবে মার্কেট রিচার্জ করে তবেই ক্রিপ্টো মর্নিং এর দিকে যান। কারণ যে কয়েনটি আজকে মাইনিং করে ইনকাম করছেন দুদিন পর সেই সিস্টেম থেকে আপনি এক টাকাও ইনকাম না হতেও পারে। সেজন্য আপনি আপনার সামর্থ্য বুঝে ক্রিপ্টোমাইনিং এর দিকে যান।

Leave a Comment