এই যন্ত্রটা আপনার বাড়িতে বাসন আর প্রতিমাসে $200-$300 ইনকাম করুন

Healium Miner বাড়িতে বসিয়ে বহুলোক হাজার হাজার টাকা ইনকাম করছ। আপনিও আপনার বাড়ির ছাদে, অফিসের জানলায়, যেকোনো জায়গায় বসিয়ে টাকা Earning করতে পারেন।

Helium Miner Ki ?

হিলিয়াম ময়নার দু-আড়াই বছর ধরে মার্কেটে আছে কিন্তু এই কয়েক মাসে এটা নিয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে।

হিলিয়াম ময়নার প্রধানত Helium Cryptocurrency Mining করার জন্য ব্যবহার করা হয়। হিলিয়াম মাইনিং করার জন্য আপনাকে শুধু Helium Miner ব্যবহার করতে হবে। হিলিয়াম কে অন্য কোনভাবে মাইন করা যায় না। হিলিয়াম ময়নার দেখতে অনেকটা বাড়িতে টিভির সাথে লাগানো Set Top Box এর মত।

হিলিয়াম ময়না কেমন ভাবে কাজ করে

হিলিয়াম ময়নারে Antena কে আপনার বাড়ির ছাদে বা কোনো উঁচু জায়গায় সেটআপ করতে হবে। এই ডিভাইসগুলির 40 থেকে 50 কিলোমিটার হয়।

হিলিয়াম মাইনা গুলি Device টির চারপাশে 40 – 50 কিলোমিটারের মধ্যে Hotspot তৈরি করে ওই Hotspot -এর মধ্যে অন্য device – এর Network -এর মাধ্যমে ডাটা রিসিভ করার ফলস্বরূপ কিছু হিলিয়াম টোকেন আপনাকে দেয়া হয়, এটাই আপনার Earning.

Helium ময়নারে সাহায্যে Helium Token Mining করার জন্য Net Connection -এর প্রয়োজ। কোন High Speed নেট কানেকশন এর প্রয়োজন নেই সাধারণ Wifi Connection হলেই আপনি ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং করতে পারবেন।

হিলিয়াম ময়নার দাম কত?

প্রথমের দিকে হিলিয়াম Miner কোম্পানি নিজেরাই বানাচ্ছিলো কিন্তু তারা বাজারে চাহিদা পূরণ করতে না পারায় তাদের এই টেকনোলজি টাকে Open Source করে দিয়েছে তাই এখন বাজারে অনেক নিত্যনতুন Hilium Miner Company দেখতে পেয়ে যাবেন।

সব কোম্পানির Miner গুলির দাম ভিন্ন ভিন্ন ,আপনাকে আপনার প্রয়োজন কে সামনে রেখে হিলিয়াম ময়নার বেছে নিতে হবে।
ভারত ও বাংলাদেশের বাজারে 40,000 থেকে শুরু করে আপনি যত দামি নিতে চান তাতো দামের হিলিয়াম ময়নার পেয়ে যাবেন।

সবথেকে ভালো Healium miner কোনটা

বাজারে অনেক ধরনের হিলিয়াম ময়নার আছে। কমদামি থেকে বহু দামি Helium Miner বাজারে আছে।
যে ময়নার গুলির মধ্যে SetTop Box- এর মতো বাড়ির মধ্যে রাখা হয় সেগুলোর দাম কম হয় আর আর্নিং টাও কম হয়। আর যে ময়নার গুলোকে ঘরের বাইরে লাগাতে হয় সেগুলি সমস্ত আবহাওয়া সহ্য করতে পারে সেগুলোর দাম অপেক্ষাকৃত বেশি আর সেগুলি থেকে টাকা টাও বেশি আয় করতে পারবেন।
সব কোম্পানিই ভাল, কেনার আগে শুধু দেখে নেবেন আপনার মার্কেটে উপলব্ধ আছে কিনা কারণ Miner অর্ডার করার পর একটা Crypto Miner বাড়িতে পৌঁছাতে তিন চার মাস লেগে যায়।

সেহেতু যে কোম্পানি আপনাকে তাড়াতাড়ি ডেলিভারি দিচ্ছে সেই কোম্পানির কাছ থেকে মাল কিনে নেবেন, আর যে কোম্পানির দাম অন্যান্য কোম্পানির থেকে যেন কম হয় সেটাও একটু দেখে নেবেন।

নিচে কয়েকটি Helium Miner এর নাম দেয়া হলো যেগুলি আপনি কিনতে পারেন

  • BobCat
  • ColdiPi
  • Cal-Chip
  • FreedomFi

Helium miner Profitability

যদি আপনার এলাকায় কিছুসংখ্যক Helium Miner থাকে তাহলে আপনার আয় হবে। আর যদি আপনার এলাকার 40 – 50 কিলোমিটারের মধ্যে কোন ময়নার না থাকে তাহলে আপনার আয় হবে না।

তাই Crypto Miner কেনার আগে দেখে নেবেন আপনার এলাকার মধ্যে কিছু সংখ্যক ময়নার আছে কি না, যদি থাকে তাহলে ময়নার কিনবেন আর যদি না থাকে তাহলে অপেক্ষা করতে পারেন,

কারণ হিলিয়াম Miner PROOF-OF-COVERAGE টেকনোলজির মাধ্যমে কাজ করে যদি অন্য Cryptocurrency Miner না থাকে তাহলে আপনার Miner থেকে অন্য মানে Data Transfer করতে পারবেনা আর Helium Token Generate পারবেনা আর আপনার ইনকাম হবে না।

আর যদি আপনার এলাকায় অনেকগুলি HeliumToken Miner আগেথেকেই লাগানো থাকে তাহলে আপনি ভাল রকম ইনকাম করতে পারবেন। এখন দেখা যাচ্ছে যাদের বাড়িতে Helium Miner লাগানো আছে তারা Avrage 200 থেকে 300 ডলার মাসে ইনকাম করছেন।

Leave a Comment